মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৬:২৪ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
NEWSS24 অনলাইন সংবাদ পত্রে আপনাকে স্বাগতম । বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন  । ধন্যবাদ

বরুড়ার জোড়পুকুরিয়াতে মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে আপন চাচীকে মারধরের অভিযোগ

ফয়সাল রহমান ভুইয়া
আপডেটের সময় : বুধবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

Spread the love

 

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ঝলম ইউনিউনের জোড়পুকুরিয়ায় দেলোয়ার হোসেনের ছেলে শশাইয়া ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষক নাসির হোসেন নামে এক মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে গত ১৪ ই ফেব্রুয়ারি (রবিবার) পারিবারিক কলহের জের ধরে তার আপন চাচীকে শারীরিক ভাবে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে।

সুত্রমতে জানা যায়, দুই পরিবারে শিশুদের মধ্যে অশালীন ভাষা বিনিময়ের মাধ্যমে ঘটনার সুত্রপাত হয় এবং একপর্যায়ে ঐ শিক্ষক উদ্ধতপূর্ণ আচরণ শুরু করতে থাকে। পরে চাচীকে লাথি মারে এবং ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। পরবর্তীতে চাচীকে প্রহারের উদ্দেশ্যে আবার লাঠি নিয়ে অশালীন ভাষা প্রয়োগ করতে করতে এগিয়ে যায়। একপর্যায়ে পরিবারের অন্য সদস্যদের ঐ শিক্ষককে বাধা প্রধান করে থামায়। অশালীন ব্যবহার করতে নিষেধ করে।ভুক্তভোগীর কান্না আর্তনাদে পরিবেশ ভারি হয়ে উঠে।

আরো জানা যায়, চাচার ঘরের আগের বউ এরকম নির্যাতনেই কয়েকদিন পরেই মারা যায়।এ ঘটনায় গ্রামের মানুষ অনেক উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। ভুক্তভোগী শিল্পী আক্তার বলেন, প্রায়শই আমার ভাইস্তা (শিক্ষক) আমাকে এভবে মারতে আসে এবং মারে।অশ্রাব্য ভাসায় গালিগালাজ করে,, আমি এই নির্যাতন এর সঠিক বিচার পাইনি। আমি সঠিক বিচারের অপেক্ষায় আছি। আমার বড় সতীন তার ঘুষির আঘাতে মৃত্যু বরন করে, যা উক্ত গ্রামবাসী সকলেই অবগত আছে। নির্যাতিত মহিলার জামাই জানান, আমি ভাতিজার আচরনে খুবই কষ্ট পেয়েছি। আমার আর কিছু বলার নেই। বিচার সবার কাছে।

নির্যাতিতার বড় বোন জামাই কুতুব উদ্দিন বলেন, আমি এই ঘটনা শুনে বোন এর উপর নির্যাতন এর বিচার চেয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছি।সঠিক বিচার এর অপেক্ষায় আছি।অভিযুক্ত গ্রাম্য শালিস প্রত্যাখ্যান করেছে। এ ব্যাপারে জানতে মাদ্রাসা শিক্ষক নাসির হোসেনকে বাড়িতে গিয়ে খোঁজে পাওয়া যায় নি।এবং পরবর্তীতে ফোন করেও পাওয়া যায় নি।


আপনার মতামত লিখুন :    
এ জাতীয় আরো সংবাদ