মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৪৮ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
NEWSS24 অনলাইন সংবাদ পত্রে আপনাকে স্বাগতম । বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন  । ধন্যবাদ

সিডিএ এর হঠকারি সিদ্ধান্তে উত্তাল বায়েজিদের আরেফিন নগর

মুহাম্মদ মোরশেদ আলম
আপডেটের সময় : শনিবার, ২৯ মে, ২০২১

Spread the love

 

সরকারি খাসজমি বাদ দিয়ে চট্টগ্রাম নগরীর জনবহুল এলাকা বায়েজিদের আরেফিন নগরস্থ স্থানীয় জনসাধারণের বসত ভিটা, স্কুল-কলেজ, মসজিদ-মাদ্রাসা ও বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদ করে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের হঠকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে আরেফিন নগর ভূমি মালিক ঐক্য পরিষদ।

শুক্রবার চট্টগ্রাম নগরীর বায়েজিদ, আরেফিন নগরস্থ এলাকায় এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

বাদে জুমার পর থেকে হাজার হাজার স্থানীয় এলাকাবাসী উপস্থিত হয়ে সিডিএ এর হঠকারি সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ শুরু করলে মুহুর্তের মধ্যে উত্তাল নগরীতে রুপ নেয় বায়েজিদের আরেফিন নগর। ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আতংকে ভূমি মালিক সহ কয়েক হাজার মানুষ অংশ নেন এ মানববন্ধনে।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, আরেফিন নগরস্থ আমাদের যে জায়গা অধিগ্রহণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)। সেই জায়গা থেকে মাত্র ৫শ ফুট দুরে বিশাল এলাকাজুড়ে সরকারি খাসজমি রয়েছে। সেখানে আবাসন প্রকল্প না করে সিডিএ কর্তৃপক্ষ অন্যায়ভাবে মানুষের বসত ভিটা, স্কুল,কলেজ,মাদ্রাসা,মসজিদ সহ বিভিন্ন শিক্ষাঙ্গনের জায়গা অধিগ্রহণ করে বায়েজিদ হাউজিং নামে যে আবাসন প্রকল্প শুরু করতে যাচ্ছে তা মানুষের উপর সরাসরি জুলুম ও অত্যাচারের সামিল। যে কারণে সিডিএ এর হটকারি সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেন স্থানীয় জনগণ। তারা বলেন, এটি সরকারি সিদ্ধান্ত নয়, নির্দিষ্ট কিছু অসাধু কর্মকর্তার ব্যক্তিগত উদ্যোগ বা সিদ্ধান্ত।

মানববন্ধনে বক্তারা TBS News এর সূত্র দিয়ে আরো বলেন, ৬০ বছরে ১৩ টি আবাসিক প্রকল্পে প্রায় ৬ হাজার ৬৬০টি প্লট বরাদ্দ দিয়েছে সিডিএ। এসব প্লটের দুই তৃতীয়াংশ প্লটেই কোনো বাড়িঘর নির্মিত হয়নি। সলিমপুর এবং কর্ণফুলী আবাসিক এলাকা প্রায় পরিত্যক্ত। খালি পরে আছে অনন্যা-১ ও অনন্যা-২।
সলিমপুরে গ্যাস নাই, কর্ণফুলীতে পানি। মাটির কন্ডিশন ভালো নয় অনন্যা আবসিক-১ ও ২ এর অভিযোগ স্বীকার করেছেন খোদ সিডিএর প্রধান প্রকৌশলী। তাই মানুষের বসত ভিটা, স্কুল,কলেজ, মাদ্রাসা,মসজিদ সহ বিভিন্ন শিক্ষাঙ্গনের জায়গা অধিগ্রহণ করে বায়েজিদ হাউজিং নামের যে আবাসন প্রকল্প শুরু করতে যাচ্ছে সে সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে সরকারের কাছেও বিশেষ অনুরোধ করেছেন আরেফিন এলাকাবাসী। পাশাপাশি আরেফিন এরিয়াতে বিশাল এলাকাজুড়ে সরকারি খাসজমি থাকা সত্বেও কেন, অন্যায়ভাবে অসহায় মানুষের বাড়ি ঘর উচ্ছেদ করে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করা হচ্ছে, সে বিষয়টি তদন্ত করে খতিয়ে দেখতে সংশ্লিষ্ট নীতিনির্ধারক ও বঙ্গবন্ধু কন্যা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। পাশাপাশি ভূমি মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী ও সচিব মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান পিএএ’র সুদৃষ্টি কামনা করেন এবং এসব হটকারি দুষ্টু সিদ্ধান্ত যেসব কর্মকর্তা নিয়েছেন তাদের উপযুক্ত শাস্তি দাবী করেছেন আরেফিন এলাকাবাসী।

এসময় ভূমি মালিক ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দরা সিডিএ চেয়ারম্যানের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, আপনি চট্টগ্রামের স্থানীয় প্রভাবশালী পরিবারের সুযোগ্য সন্তান। আপনি দীর্ঘদিন ধরে জনকল্যাণ ও জনগণের সেবা করে আসতেছেন। গরীব দুঃখী মেহনতি মানুষের পাশে আপনি ও আপনার পরিবার সব সময় ছিলেন। সেই সুবাদে ও চট্টগ্রামের সন্তান হিসাবে আপনার কাছে আমাদের দাবী হচ্ছে বিষয়টি আপনার নজরে আনবেন। তারা আরো বলেন, আমাদের এই এলাকাতে হাজার হাজার একর সরকারি খাসজমি রয়েছে। সেখানে আবাসিক প্রকল্প বা বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ না করে, আমাদের নিজস্ব জায়গার উপর কোন উদ্দেশ্যে ও কোন বিশেষ মহলের ইঙ্গিতে, আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়নের নামে সরকারের সুনাম ও আপনার সিডিএ’র সুনাম নষ্ট করার প্রয়াসে এ ধরনের কাজ কারা করছেন, তা খতিয়ে দেখার জন্য আলাদা একটি তদন্ত কমিটি গঠনের দাবী জানাচ্ছি। এবং এরকম হটকারি সিদ্ধান্তে মূল পরিকল্পনা প্রণয়নকারীদের শনাক্ত করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবীও করেন ভূমি মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দরা।

এবিষয়ে এলাকার স্থানীয় কয়েকজন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ বলেন, আমাদের এলাকাতে সুন্দর একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানের কাজ শুরু হয়েছে, যেটির কাজ চলমান রয়েছে। আশা করছি দ্রুত কাজ শেষ হবে ও এই মাদ্রাসার মাধ্যমে এলাকার ছেলেমেয়েরা শিক্ষার সুন্দর পরিবেশ পাবে। যেটি সরকারের কাছে দীর্ঘদিনের দাবী ছিলো আরেফিন এলাকাবাসীর। আমাদের সেই দাবী ও স্বপ্ন পূরণের অনেকটা কাছাকাছি আমরা। কিন্তু হঠাৎ করে সিডিএ এর হটকারি সিদ্ধান্তে আমরা খুবী মর্মাহত হয়েছি। আমরা মনে করি শিক্ষাঙ্গন ভেঙ্গে বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের এ সিদ্ধান্ত শতভাগ অন্যায়। এরকম অন্যায় সিদ্ধান্ত কখনো দেশের মঙ্গল বয়ে আনবেনা। পাশাপাশি তারা এলাকার ছেলেমেয়েদের শিক্ষার স্বার্থে শিক্ষাঙ্গন রক্ষা করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সহ দেশের নীতিনির্ধারকদের কাছে এ বিষয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার আহবান করেন।

এসময় অন্যায় এ অধিগ্রহণ নামের মানুষ নির্যাতনের অভিনব কৌশলের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান স্থানীয় এলাকাবাসী ও বিশিষ্ট জনেরা। তারা বসতবাড়ি উচ্ছেদ ও জমি অধিগ্রহণ সিদ্ধান্ত বন্ধ না হলে আরও কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দেন।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন ভূমি মালিক মোহাম্মদ ওয়াহাব, সার্জেন্ট মোহাম্মদ নাসের, মোহাম্মদ সিরাজ, মোহাম্মদ খালেক, মোহাম্মদ কালাম, বৃহত্তর আরেফিন নগর বাজার সমিতির সভাপতি মুহাম্মদ রহিম, মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন সহ আরো অনেকে।
এছাড়াও ভূমি মালিক ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ, আরেফিন কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ কর্তৃপক্ষ, মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় অসংখ্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং সর্বস্তরের জনসাধারণ উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :    
এ জাতীয় আরো সংবাদ